About মডার্ণ এইপ

মডার্ন এইপ আমার ছদ্মনাম। ভালোবাসি বিজ্ঞান ও যুক্তি। যুক্তির আলোকে তাই বিজ্ঞানকে খুজে বেড়াই। পড়াশুনা জীব বিজ্ঞান। পাশাপাশি শখের বসে আনাড়ি ও অগোছালোভাবে কিছু তথ্য টুকে রাখি নিজের মত করে। আমার টোকাটুকির সেই সংগ্রহশালাই হলো এইপ’স ব্লগ। এছাড়া লিখি মুক্তমনা ও বিজ্ঞানব্লগে। ইমেইলঃ এইপডটমডার্নএটইয়াহুডটকম।

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস ও স্বাধীন বাংলার গোড়াপত্তন

আজ আমরা একটি স্বাধীন ভূখণ্ডে বাস করি, যার আলো-বাতাস বড্ড বেশি নির্মল – ভূখণ্ডটি বাংলাদেশ, আমাদের জন্মভূমি। পৃথিবীর ইতিহাসে সবথেকে কম সময়ে সবথেকে বেশি মানুষ হত্যা করা হয়েছে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে। তাই আমাদের স্বাধীনতা নিছক সংগ্রাম ছিলনা, এটা ছিল অধিকার আদায়ের আন্দোলন, আত্মমুক্তির সংগ্রাম, আত্মসম্মানের লড়াই। এবং বলাবাহুল্য এরজন্য মূল্যটাও আমাদের কম গুনতে হয়নি, ত্রিশ লক্ষেরও বেশি জীবন এবং আড়াই লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের জলাঞ্জলি দিতে হয়েছিল শুধু এই মুক্ত বাতাসটুকু পেতে। আমাদের স্বাধীনতার রক্তাক্ত ইতিহাস নয় মাসের এবং এই দীর্ঘ সংগ্রামে নিষ্কলুষ রক্তের পাশাপাশি দরকার ছিল একটি সুযোগ্য নেতৃত্বের। যাদের ভরসায় বাংলাদেশ নামক শিশুটিকে জন্ম দিতে ঝাপিয়ে পড়েছিল লক্ষ-লক্ষ আবাল-বৃদ্ধা-বনিতা। সেই রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের সফল পরিণতি তথা স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠনের আনুষ্ঠানিক বীজ প্রোথিত হয়েছিল ১৭ই এপ্রিল ১৯৭১। কি হয়েছিল এই দিনে, কেন এতো বিশেষ এই দিনটি!? Continue reading

Advertisements

রোহিঙ্গা ইস্যু, বাঙালী ও বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে চুপ থাকবো ভেবেছিলাম। যেখানে নিজের দেশের সব সমস্যার প্রতিবাদ করতে পারিনা তখন অন্য দেশের অন্য জাতির সমস্যা নিয়ে ভাবাটা নিতান্তই বিলাসিতা। কিন্তু চুপ থাকাটাও অনেকের কাছে ভন্ডামী। বাংলাদেশীরা বার্মায় রোহিঙ্গা নির্যাতনে খুব সোচ্চার, এতটা সোচ্চার নিজ দেশের সংখ্যালঘু নির্যাতনেও দেখা যায়নি। কেন! কারণ বেশিরভাগ বাংলাদেশীর কাছে রোহিঙ্গারা আগে মুসলিম পরে মানুষ (বাকিরা হয়তো মানুষই না)। আমার কাছে মানুষ পরিচয়টাই আসল। এজন্য আমার দেশের মানুষের নির্যাতন আর ভিন্ন দেশের মানুষের উপর নির্যাতন আমাকে সমানভাবে ব্যাথিত করে। নিজের লোকদের প্রাধান্য তাই আগে দিতে চাইবো। আমি রোহিঙ্গাদের মুসলিম বলার আগে মানুষ বলতে চাইবো। Continue reading

The interdependency of cellular and subcellular DNA

Evolution of eukaryotic cells was certainly a remarkable step in the emergence of complex organisms. This revolutionary step had occurred through the endosymbiotic relationship of different types of bacteria – survival of bacteria within another bacterium. According to the endosymbiotic theory, it is known that mitochondria and chloroplast in plant cell were free-living bacteria once. This theory is greatly supported by the existence of primitive bacterial DNA within these sub-cellular organelles. Continue reading

Viral Evasive Strategies: dodging the immune system

Charles Darwin described evolution by his famous statement “struggle for the existence”. Nature always like predator-prey play. Our body evolved a complex network of immune system to combat with different kind of external organism and substances like virus. Viruses also have a place in nature and also meant to survive. Therefore, they also developed different evasive strategies to dodge the immune system. Today we will know how virus avoid immune attack after entering into our body. Continue reading

পৃথিবীতে পানি কোথা থেকে এলো?

পৃথিবী পৃষ্ঠের প্রায় ৭০ ভাগ পানি দ্বারা বেষ্টিত। পৃথিবীর মোট পানির ৯৭% দ্বারা সমুদ্র গঠিত আর বাকি ৩% দ্বারা নদী, ভূগর্ভস্থ পানি, গ্লেসিয়ার, অন্যান্য সব গঠিত। এই পানি কখনো তরল, কখনো বরফ আবার কখনো বাষ্প হয়েছে আবার সময়কালে বৃষ্টি হয়ে ভূপৃষ্ঠে ঝরে পড়েছে। এভাবে পৃথিবীতে পানির পরিমান সবসময় একই থেকেছে। পানি জীবনের একটা অপরিহার্য উপাদান। পৃথিবী পানিশুন্য হলে হয়তো জীবনের উৎপত্তি সম্ভব হতোনা। কিন্তু জীবনের সমতূল্য এই উপাদানটি সম্পর্কে আমরা কতটুকুই বা জানি! পানি সম্পর্কে সবথেকে প্রথম ও গুরুত্বপুর্ণ প্রশ্নের উত্তরটাইতো এখনো আমরা সঠিকভাবে জানিনা, যে পৃথিবীতে পানি কোথা থেকে এলো? Continue reading

আমার অভিজিৎ রায় ভাবনা

অভিজিৎ রায়ের সাথে আমার কোন স্মৃতি নেই। ব্যাক্তিগত স্মৃতি থাকার আবশ্যকতা হয়তো ততটা ছিলনা কিন্তু আবশ্যকতা ছিল তার ভাবনার জগতের ভাগ পাওয়া। আমি গর্বিত কারণ আমি সেটা পেয়েছি। অন্য মুক্তমনাদের কাছে এটা কতটা গুরুত্বপুর্ন জানিনা তবে এটা আমার বড় পাওয়া। আমার চিন্তাধারায় সবথেকে বেশি প্রভাব ফেলেছে আরজ আলী মাতুব্বর এবং অভিজিৎ রায়। আমার সমসাময়িক সময়ে অভিজিৎ রায়কে পাওয়া তাই অনেক বড় কিছু। তবে দেখা হওয়ার আগেই তিনি এভাবে চলে যাবেন ভাবতে পারিনি। Continue reading

জিকা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এবং সম্ভাব্য বিপদ

এবোলা ভাইরাসের বাতাস ঘুরতে না ঘুরতেই নতুন এক ভাইরাসের আবির্ভাব, জিকা ভাইরাস (ZIKV)। নতুন করে আবির্ভাব ঠিক নয় বরং প্রাদুর্ভাব বেড়েছে হটাৎ করেই। সাম্প্রতিক সময়ে এই ভাইরাস আলোচনার শীর্ষে কারন জিকা ভাইরাস আক্রমনের এক ভয়ঙ্কর দিক উন্মোচিত হয়েছে। সর্বপ্রথম ১৯৪৭ সালে উগান্ডায় অবস্থিত জিকা বনে রেসাস বানরদের মধ্যে এই ভাইরাস দেখা যায় (বনের নামেই নামকরণ)। এই সূত্রধরে কয়েক বছর বাদে ১৯৫২ সালে উগান্ডার মানুষের মধ্যেও এটি ধরা পড়ে। এরপর বিভিন্ন সময় এটাকে আফ্রিকা, আমেরিকা এবং এশিয়াতে দেখা যায় কিন্তু ততটা বিপজ্জনক নয় বলে অতটা ভাবা হয়নি। Continue reading