আমার অভিজিৎ রায় ভাবনা

অভিজিৎ রায়ের সাথে আমার কোন স্মৃতি নেই। ব্যাক্তিগত স্মৃতি থাকার আবশ্যকতা হয়তো ততটা ছিলনা কিন্তু আবশ্যকতা ছিল তার ভাবনার জগতের ভাগ পাওয়া। আমি গর্বিত কারণ আমি সেটা পেয়েছি। অন্য মুক্তমনাদের কাছে এটা কতটা গুরুত্বপুর্ন জানিনা তবে এটা আমার বড় পাওয়া। আমার চিন্তাধারায় সবথেকে বেশি প্রভাব ফেলেছে আরজ আলী মাতুব্বর এবং অভিজিৎ রায়। আমার সমসাময়িক সময়ে অভিজিৎ রায়কে পাওয়া তাই অনেক বড় কিছু। তবে দেখা হওয়ার আগেই তিনি এভাবে চলে যাবেন ভাবতে পারিনি। Continue reading

Advertisements

প্রকাশক হত্যা এবং আমার অবেলা!

দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে বাংলাস্তান সৃষ্টির আয়োজন।  ব্লগার হত্যার ধারা বজায় রেখে এবার নতুন এক ধারার জন্ম দিতে কুপিয়ে জখম ও হত্যা করা হলো মুক্তধারার বইয়ের প্রকাশককে। গত ৩১ অক্টোবর, শুদ্ধস্বরের অফিসে হামলা করে প্রকাশক আহমেদুর রশীদ চৌধুরী টুটুল, তারেক রহিম এবং রণদীপম বসু – এই তিন জনকে গুরুতর জখম করা হয়। এর ঠিক কয়েক ঘন্টা পরেই জাগৃত প্রকাশনীর ফয়সাল আরেফিন দীপন কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এদের চারজনের মধ্যে রণদীপম বসুর লেখার সাথে আমি পরিচিত। এই প্রকাশকদের অপরাধ তারা অভিজিৎ রায়ের বই প্রকাশ করেছিল। কি অদ্ভুত দেশ আমাদের! Continue reading

ব্লগাররা আমার কে হয়!

ব্লগাররা তোর কে হয়, তাদের নিয়ে তোর এতো মাথাব্যাথা কেন!? অভিজিৎ দার মৃত্যুর পর থেকে এপর্যন্ত ব্লগারদের স্বপক্ষে লেখার জন্য অনেকের সাথে বহুবার তর্কে-বিতর্কে জড়িয়ে পড়তে হয়েছে, ফলে নিকট মানুষদের কাছ থেকেই এই প্রশ্নটার মুখোমুখি হয়েছি। ভেবে পাইনা কি বলবো! ব্লগারদের অধিকাংশের সাথে আমার সরাসরি পরিচয় নেই সত্য, বেশিরভাগই পরিচিত লেখার মধ্য দিয়ে। সুতরাং তথাকথিত সম্পর্কের প্রশ্নটা এখানে অবান্তর কিন্তু সম্পর্ক অনেক রকম হয় (রক্তের, শরীরের, আত্মার), তাই কিছু না কিছুতো আছেই। লেখার মধ্যদিয়ে একজন ব্যক্তির চিন্তা-চেতনা-আদর্শের প্রতিফলন ঘটে। এজন্য এসব মানুষদের সাথে আমার আদর্শিক সম্পর্ক, ভালবাসা, ভালোলাগার সম্পর্ক। সবথেকে বড় সম্পর্ক এরা সবাই মানুষ, কেউ মহামানব নয়। Continue reading