আমার অভিজিৎ রায় ভাবনা

অভিজিৎ রায়ের সাথে আমার কোন স্মৃতি নেই। ব্যাক্তিগত স্মৃতি থাকার আবশ্যকতা হয়তো ততটা ছিলনা কিন্তু আবশ্যকতা ছিল তার ভাবনার জগতের ভাগ পাওয়া। আমি গর্বিত কারণ আমি সেটা পেয়েছি। অন্য মুক্তমনাদের কাছে এটা কতটা গুরুত্বপুর্ন জানিনা তবে এটা আমার বড় পাওয়া। আমার চিন্তাধারায় সবথেকে বেশি প্রভাব ফেলেছে আরজ আলী মাতুব্বর এবং অভিজিৎ রায়। আমার সমসাময়িক সময়ে অভিজিৎ রায়কে পাওয়া তাই অনেক বড় কিছু। তবে দেখা হওয়ার আগেই তিনি এভাবে চলে যাবেন ভাবতে পারিনি। Continue reading

Advertisements

জৈবপ্রযুক্তি বিষয়ক নোটস এন্ড ডকুমেন্টস

জীব বিজ্ঞানের ছাত্রদের প্রধান কাজ কি হওয়া উচিৎ? নিশ্চয় জীব বিজ্ঞানকে ভালোভাবে জানা এবং বোঝা। বিরাট ব্যাপার – এতো বড় দায়িত্ব পালন করা আমার কম্ম নয়। একেতো আমি অলস মানুষ তাতে আবার পড়ালেখা সম্পর্কিত ব্যাপার। ভাবতেই গা শিউরে ওঠে! তবে অলস হওয়ার বড় সুবিধে হলো হাতে অঢেল সময় থাকে। সময় জিনিসটা অদ্ভুত বটে, মহাবিশ্বের সবথেকে দামী বস্তু অথচ কোন মালিকানা নাই। ইচ্ছে করলেই যত খুশি অপচয় করা যায়। তাই স্রেফ শখের বসে অনার্স জীবনের প্রতিটি বর্ষেই কিছু না কিছু লিখে সময় অপচয় করেছি। তবে বেলা শেষে দেখলাম তেমন ভালো করে কিছুই করা হয়নি। উপরন্তু যে কারনে লেখা সেটাই হয়ে ওঠেনি; ফলাফল সহজেই অনুমেয়। আমি লেখার দলে তাই লিখেছি, যারা গেলার দলে তারা গিলেছে।  Continue reading

বাবার জন্য অভিমান!

এইপ’স মেমোরি অফ ১১১১১৫


গত কয়েকদিন বাবা প্রতিদিন রাতে ফোন করেন। শুরুতে অবশ্য মা-ই কথা বলে, পরে উনি কথা বলেন। এটা ওটা জিজ্ঞেস করেন। আমি সবকিছুতে হ্যা-হুম-আচ্ছা করে যাই; এর থেকে বেশি কিইবা বলবো! খুব বলতে ইচ্ছে করে, “বাবা কেমন আছো; বাবা আজ পরিক্ষা ভালো হইছে; বাবা ক্যাম্পাসে আজ এই হয়েছে; বাবা কিছু টাকা লাগতো”, কিন্তু বলতে গিয়ে আটকে যাই, কারন তিনি খুব স্পষ্ট করেই বলে দিয়েছেন তাকে যেন আর বাবা বলে না ডাকি। বাবার সাথে কথা বলার সময় মনটা খুব ভার হয়ে যায়, বাবা বারবার জিজ্ঞেস করেন কি হইছে তোর, শরীর ঠিক আছে তো! অকপটে বলে যাই ঠিক আছি আমি কিন্তু আমি ঠিক নেই, আমি মোটেই ঠিক নেই। কথা শেষে লাইন কেটে যায় তবু কিছুক্ষন ধরে রাখি ফোনটা! Continue reading

প্রকাশক হত্যা এবং আমার অবেলা!

দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে বাংলাস্তান সৃষ্টির আয়োজন।  ব্লগার হত্যার ধারা বজায় রেখে এবার নতুন এক ধারার জন্ম দিতে কুপিয়ে জখম ও হত্যা করা হলো মুক্তধারার বইয়ের প্রকাশককে। গত ৩১ অক্টোবর, শুদ্ধস্বরের অফিসে হামলা করে প্রকাশক আহমেদুর রশীদ চৌধুরী টুটুল, তারেক রহিম এবং রণদীপম বসু – এই তিন জনকে গুরুতর জখম করা হয়। এর ঠিক কয়েক ঘন্টা পরেই জাগৃত প্রকাশনীর ফয়সাল আরেফিন দীপন কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এদের চারজনের মধ্যে রণদীপম বসুর লেখার সাথে আমি পরিচিত। এই প্রকাশকদের অপরাধ তারা অভিজিৎ রায়ের বই প্রকাশ করেছিল। কি অদ্ভুত দেশ আমাদের! Continue reading

‪‎এনআইবি স্মৃতিকাব্য ও কৃতজ্ঞতা স্বীকার‬!

মজার সময়গুলো বড্ড ক্ষণস্থায়ী হয়! ‪আইনস্টাইনের‬ ভুত (আপেক্ষিকতা) তখন আমাদের মনে ভর করে। কঠিন সময়গুলো যায় খুব ধীরে আর মজার সময়গুলো চোখের পলকে। ঠিক তেমনি বুঝার আগেই যেন শেষ হয়ে গেলো ‪এনআইবির (NIBNational Institute of Biotechnology)‬ চমৎকার দিনগুলো। ওখানে গেছিলাম ‪জৈবপ্রযুক্তির‬ বেসিক ট্রেনিং করতে কিন্তু আমার মনে হয় ওটা একটা প্রতিযোগিতা ছিল, মজা করার প্রতিযোগিতা। সবাই মিলে অনেক মজা করেছি। ট্রেনিং শেষে বাসায় ফিরে খুব মিস করছি সবাইকে, বিশেষ করে ইন্ডিয়াবাসী দুধখোর ‪বিট্টু‬ ওরফে সাদিকুর ভাইয়ের মজার মজার কৌতুক, ‪সুমন‬ দার বিবাহিত জীবনের অভিজ্ঞতায় ফাপা মেদভুড়ির নাটকীয়তা ও প্রশ্নবিদ্ধ ল্যাব সেশন, হ্যান্ডসাম ফিলো ‪‎রাশেদ‬ ভাইয়ের ভাব গাম্ভীর্য, ঝাঁকড়া চুলের ‪‎শোভন‬ ভাইয়ের লাজুক হাসি Continue reading